ব্যবসায়Zillion প্ৰাইমঅর্থনীতিকেরিয়ারতারুণ্যপ্রযুক্তি

ঘরে বসে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের ৫ টি উপায় (2021)

ইন্টারনেট পুরো বিশ্বকে সংযুক্ত করেছে। 

ইন্টারনেটে ব্যবহারকারীর সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনি এটির দ্বারা তৈরি কাজের সুযোগগুলি দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে।  তাই আজ, আমরা অনলাইনে অর্থোপার্জনের কিছু উপায় নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি। 

আপনি যদি শিক্ষার্থী হন এবং নিয়মিত কিছু সময় দিতে পারেন তবে আপনি ইন্টারনেট থেকে সহজেই কিছু অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

যদিও নিচের উল্লিখিত উপায় গুলি থেকে কোন বিনিয়োগ ছাড়াই অর্থ উপার্জন করা সম্ভব, সেগুলি দ্রুত নাও হতে পারে। কিছু মাস তো আপনাকে পরিশ্রম করে যেতে হবে।

1. ফ্রিল্যান্সার(Freelancer)

আপনার যদি ওয়েব ডিজাইনিং, কনটেন্ট রাইটিং বা অনেক কিছু মতো শখ থাকে তবে ফ্রিল্যান্সিং আপনার পক্ষে উপকারী হতে পারে। কেবল freelancer.com এর মতো একটি সাইটে যোগদান করুন এবং আপনার ইচ্ছা মতো একটি কাজকে নির্বাচন করুন।

আপনার ফ্রিল্যান্সিং অ্যাকাউন্ট থেকে আপনার উপার্জন আপনার দক্ষতার উপর নির্ভর করে।  আপনার কাজের মান যত ভাল হবে আপনার আয় তত বেশি।

আপনি যে ধরণের প্রকল্পে কাজ করতে চান তা মনে রাখবেন।  উদাহরণ – আপনি যদি কোনও ওয়েবসাইট ডিজাইনার হন তবে আপনাকে নিজেকে কয়েকটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে হবে-

  •  আমি কি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বা বড় কোন প্রতিষ্ঠান এর সাথে কাজ করতে চাই?
  • আমার আদর্শ ক্লায়েন্ট কি আমার পরিষেবাগুলি বহন করতে পারে?
  • আমার আদর্শ ক্লায়েন্টটি যে প্রয়োজনীয় দক্ষতা সন্ধান করছে তা কি আমার কাছে রয়েছে?

এই প্রশ্নের উত্তর আপনাকে সেই অনুযায়ী আপনার যাত্রা পরিকল্পনা করতে সহায়তা করবে।

এছাড়াও, একটি ভাল পোর্টফোলিও তৈরি করুন। আপনার পোর্টফোলিও যেন আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের আকৃষ্ট করে। আপনি যে প্রকল্পগুলিতে কাজ করেছেন তার উল্লেখ করুন।

আপনার আগের গ্রাহকের পর্যালোচনা(Review) উল্লেখ করুন।  ভাল পর্যালোচনাগুলি (Reviews) আপনার প্রোফাইলকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলে এবং আপনাকে নির্ভরযোগ্য এবং খাঁটি দেখায়। আসুন ধরা যাক আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন করছেন, তাহলে আপনার কিছু ওয়েবসাইট আগে থেকেই ডিজাইন করে রাখা দরকার, যাতে আপনি আপনার দক্ষতা দেখাতে পারেন। 

আপনার একটি নেটওয়ার্কও তৈরি করা দরকার।  প্রথম পদক্ষেপটি হ’ল একটি professional LinkedIn প্রোফাইল থাকা, যা আপনার কাজের বিবরণ দেয়।

আপনার সাথে একই কর্মে সংযুক্ত ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা করুন। তাদের কাছে সাহায্য চাইতে দ্বিধা করবেন না। তারা আপনাকে কিছু দরকারি পরামর্শ দিতে পারে।

আপনি যদি এই সমস্ত ক্ষেত্রে নতুন হন, সম্ভাবনা হ’ল আপনি অবিলম্বে ফ্রিল্যান্সিং থেকে উপার্জন করতে পারেন না। হতাশ হবেন না আরও ভাল ফলাফল পেতে আপনার দক্ষতা উন্নত করুন।

2. ব্লগিং(Blogging)

আপনি যদি কিছু সম্পর্কে উত্সাহী হন, উদাহরণস্বরূপ, স্মার্টফোন, বই, ইত্যাদি, তবে আপনি একটি ব্লগ শুরু করতে পারেন।  একটি ওয়েবসাইট তৈরি করুন, একটি বিভাগ বাছুন, এবং শুরু করতে পারেন।

ইন্টারনেটে সার্চ করুন অথবা ইউটিউব ভিডিও দেখুন কিভাবে ব্লগ তৈরি করতে হয়।

Read more: Everything You Need to Know About Blogging – Make Money Blogging

আপনার ব্লগ থেকে কিছু অর্থোপার্জনের জন্য, আপনাকে ধারাবাহিকভাবে নিবন্ধগুলি (articles) পোস্ট করা দরকার। আপনার পাঠকদের জানুন এবং তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি লিখুন।

আপনার ওয়েবসাইটটি মসৃণ এবং চোখে আকর্ষণীয় লাগে এমন রাখুন।  একবার আপনার নিজের ওয়েবসাইটে ট্র্যাফিক আসা শুরু হলে, তারপরে আর ফিরে তাকাতে হবে না! আপনি একাধিক উৎস যেমন বিজ্ঞাপন, অনুমোদিত বিপণন, প্রচার এবং আরও অনেক কিছু থেকে উপার্জন করতে পারেন।

গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense)

গুগল অ্যাডসেন্স অনলাইনে অর্থোপার্জনের অন্যতম কার্যকর উপায়।

গুগল এডসেন্স থেকে উপার্জন করতে গেলে আপনার কাছে কিছু মাধ্যম থাকা দরকার। যেমন ব্লগ, ওয়েবসাইট, অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন, ইউটিউব চ্যানেল ইত্যাদি।

এটি একটি সাধারণ মাপদণ্ডে কাজ করে- যদি আপনার ব্লগটি বেশ ভাল পরিমাণে ট্র্যাফিক আসে তবে গুগল আপনাকে এতে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আপনাকে অর্থ প্রদান করবে।

সুতরাং আপনার যা দরকার তা হ’ল একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট বা এন্ড্রয়েড এপ্লিকেশন বা ইউটিউব চ্যানেল।  আপনার ওয়েবসাইটটিকে আকর্ষণীয় এবং  আপনার বিষয় সম্পর্কে নিয়মিত পোস্ট করুন (বিনোদন, খেলাধুলা ইত্যাদি হতে পারে)।  যখন আপনার  ব্লগ বা ওয়েবসাইট বা এন্ড্রয়েড এপ্লিকেশন বা ইউটিউব চ্যানেল এ ভালো ট্রাফিক আসছে, আপনি গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন।

আপনার ট্র্যাফিক বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে Google AdSense থেকে উপার্জন বৃদ্ধি পায়।  সময়ে সময়ে আপনার ব্লগ আপডেট করতে হবে।  গুগল এডসেন্স থেকে লোকেরা প্রতিদিন 5000-6000 টাকা উপার্জন করছে। এটি সহজেই আপনার আয়ের প্রাথমিক উৎস হতে পারে।

3. সম্পূর্ণ বিপণন (AFFILIATE MARKETING)

প্রথমত, আপনাকে বুঝতে হবে AFFILIATE MARKETING কী।

AFFILIATE MARKETING খুব সহজ। এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে আপনি অন্যকে কোনও কোম্পানির পণ্য কেনার জন্য বলেন এবং আপনার রেফারেলের উপর ভিত্তি করে প্রতিটি বিক্রয়ের ভিত্তিতে সংস্থা আপনাকে কিছু কমিশন দেয়।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি লেনোভোর ল্যাপটপ অনলাইন প্রচার করছেন। আপনি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে পণ্যটির একটি লিঙ্ক দিয়েছেন, আপনার অনুগামীরা ক্লিক করবে। যদি তারা আপনার লিঙ্কটিতে ক্লিক করার পরে ল্যাপটপটি কিনে, আপনি লেনোভো থেকে একটি কমিশন পান। এটা ঐটার মতই সহজ!

এটি কিভাবে কাজ করে?

Affiliate marketing এ আপনি মূলত কোনও ব্র্যান্ড বা কোনও সংস্থার জন্য বিপণনকারী।

আপনি নিজেকে একজন স্বাধীন বিক্রয়কারী ভাবতে পারেন। আপনি সংস্থার কোন কর্মচারী নন, তবুও আপনি তাদের পণ্য বিক্রয় করতে তাদের সহায়তা করেন।

4. VLOGGING

If you think that writing is not your cup of tea, চিন্তা করবেন না। আপনি ভিডিও তৈরি করে ইউটিউবে পোস্ট করতে পারেন।  আপনাকে কেবল একটি বিষয় সন্ধান করতে হবে এবং এটি সম্পর্কে ভিডিও বানাতে হবে।

এটি ব্লগিংয়ের মতো সহজ না হলেও এটি সহজেই সম্ভব।  যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেলে মোটামুটি একটা ভালো দর্শক আসছে, আপনি ইউটিউবের পার্টনার প্রোগ্রামের অংশ হতে পারেন।

কয়েকটি বিভাগ আছে যা ইউটিউবে সাফল্য অর্জন করেছে। লোকেরা মজাদার এবং বিনোদনমূলক সামগ্রী দেখতে পছন্দ করে।  সুতরাং আপনি একটি কমেডি ইউটিউব চ্যানেল শুরু করতে পারেন। তবে আপনার সামগ্রীতে আপনার যথেষ্ট সৃজনশীল হওয়া দরকার। 

লোকেরা তাদের জন্য সহায়ক ভিডিও দেখতেও পছন্দ করে।  আপনি প্রযুক্তিতে থাকলে আপনি নতুন প্রযুক্তি সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করতে পারেন।  আপনি যদি রান্না করতে পছন্দ করেন তবে আপনি সর্বদা নতুন রেসিপিগুলি দেখানো ভিডিও তৈরি করতে পারেন।  ইউটিউবের জন্য যে কোনও কিছু সম্পর্কে ভিডিও তৈরি করা সম্ভব!

5. সামাজিক মিডিয়া (Social Media)

লোকেরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের গুরুত্ব বোঝে। অনেক ব্যবসা তাদের নির্ধারিত ক্রেতার সাথে সংযোগ রাখতে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। সুতরাং প্রভাবশালীরা (Influencer) আজকাল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

লোকেরা ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্টের জন্য 20,000 টাকা উপার্জন করতে পারে।  আপনি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে প্রচুর অর্থোপার্জন করতে পারেন। আপনি যদি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদির মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে প্রভাবশালী হতে চান, তবে আপনার একটি শক্তিশালী অনুসরণকারী ভিত্তি প্রয়োজন।

আপনার অনুগামীরা আপনার সম্পদ। আপনি অনুগামীদের অর্জন করতে শিক্ষামূলক বা বিনোদনমূলক পোস্ট করতে পারেন।

আপনার অনুগামীদের বৃদ্ধি করা এবং আপনার দর্শকদের আস্থা অর্জন একটি দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়া হলেও এটি অবশ্যই আপনার কঠোর পরিশ্রমকে সুন্দরভাবে শোধ করবে।

This is a bangla article written by Rahaman Bin Ujit. This article is all about some genuine ways to make money online.

Rahaman Bin Ujit

Hey, I am Rahaman Bin Ujit. 17 years old cool dude who loves to learn new skills. I am a Digital Creator, Blogger, and Co-founder of Zillion Media.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button